ছোলা খাওয়ার উপকারিতা

কাঁচা ছোলা অনেক পুষ্টিকর একটি খাবার এবং ছোলা খাওয়ার উপকারিতা  অনেক । প্রতিদিন ঘুম থেকে ওঠার পর কাঁচা ছোলা খেলে শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি পায় এবং শরীরে প্রচুর শক্তির উৎপন্ন হয়। নিয়মিত কাঁচা ছোলা শরীর এবং মনকে সতেজ রাখতে সহায়তা করে। পৃথিবীতে কত ধরনের ব্যবহার অনেক। এছাড়াও কাঁচা ছোলা থেকে তৈরি অনেক পণ্য গুণগত সম্পন্ন হয়ে থাকে।  

ঘাড়ের কালো দাগ দূর করার ৫ টি ঘরোয়া পদ্ধতি

ছোলার পুষ্টিগুণ ও উপকারিতা 

ছোলার ডালের উপকারিতা

ঢাল হিসেবে কাঁচা ছোলা অনেক পুষ্টিকর। ছোলায় প্রচুর পরিমাণে ম্যাঙ্গানিজ এবং মলিবেডনাম রয়েছে। এছাড়াও ছোলায় রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ফলেট,আমিষ,  ট্রিপট্যোফান, কপার, ফসফরাস এবং আয়রন।

হৃদ রোগের ওষুধ হিসেবে: 

বিভিন্ন গবেষণা থেকে দেখা গেছে ছোলায় কোলেস্টেরল এবং খারাপ কোলেস্টেরলের পরিমাণ খুবই কম। নিয়মিত ছোলা খেলে হূদরোগে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি অনেকাংশে কমে যায়। ছোলাতে দ্রবণীয় এবং অদ্রবণীয় উভয় ধরনের খাদ্য আঁশ  রয়েছে।যা হূদযন্ত্রের ক্রিয়া বৃদ্ধিতে সহায়তা করে। 

রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে: 

ফলিক এসিড যুক্ত খাবার মানুষের উচ্চ রক্তচাপ এবং হাইপারটেনশন প্রবণতা কমিয়ে দেয়। ছোলায় রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ফলিক এসিড। নিয়মিত ছোলা খেলে মানুষের উচ্চ রক্তচাপ, নিম্ন রক্তচাপ এবং হাইপার টেনশন হওয়ার প্রবণতা কমে যায়। আমেরিকার মেডিকেল গবেষকরা জানিয়েছে যে, ফলিক এসিড যুক্ত খাবার খেলে অল্প বয়সী নারী এবং পুরুষের হাইপারটেনশন এবং রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে থাকে। এছাড়াও বৃদ্ধ বেশি করে হলে গেছে যুক্ত খাবার খেতে উৎসাহী করেছে। তাদের তথ্য মোতাবেক তাতে প্রচুর পরিমাণে ফলিক এসিড রয়েছে। 

প্রতিদিন নিয়মিত ঘুম থেকে উঠে কাঁচা ছোলা খেলে প্রচুর পরিমাণে ফলিক এসিড শরীরে প্রবেশ করে। 

রক্ত চলাচল: 

শরীরে রক্তনালীতে রক্ত চলাচল করে। যদি রক্তে চর্বির পরিমাণ বেড়ে যায় তাহলে রক্ত চলাচলে ব্যাঘাত ঘটে। নিয়মিত ছোলা খেলে রক্তে চর্বির পরিমাণ কমতে থাকে। ছোলা, সিম এবং মটর খেলে শরীরের রক্ত চলাচল বৃদ্ধি পায়। 

 ক্যানসার রোধে: 

ফলিক এসিড ক্যানসার রোধে সাহায্য করে। নিয়মিত ছোলা খেলে শরীরে ক্যান্সারের জীবাণু মারা যায়। যার ফলে আপনার শরীরে ক্যান্সার আক্রমণ করতে পারে না। মহিলাদের নিয়মিত ছোলা খেলে কোলন ক্যান্সার ও ব্রেস্ট ক্যান্সারের ঝুঁকি কমে। 

রমজান: 

রমজান মাসে ইফতারের অনেক জনপ্রিয় একটি খাবার হলো ছোলা। বিভিন্ন দেশে ছোলার ডাল খাওয়ার প্রচলন রয়েছে। সারাদিন রোজা থাকার পরে শরীরে শক্তি যোগানো জন্য ছোলা অতুলনীয়। মানবদেহে শক্তি, হাড় মজবুত এবং রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করতে ছোলা অনেক ভূমিকা পালন করে। এজন্য রমজান মাসের সোলার ব্যবহার অনেক। 

কোলেস্টরেল: 

ছোলায় যে ফ্যাট বা তেল রয়েছে তার বেশিরভাগই পলিআনস্যাচুরেটেড ফ্যাট। এই ফ্যাট শরিরের জন্য ক্ষতিকর নয়। এছাড়াও রয়েছে প্রোটিন, কার্বোহাইড্রেট,ভিটামিন ও খনিজ লবণ । 

কোষ্ঠকাঠিন্য: 

খাদ্যের যেকোনো ধরনের আর কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করতে সহায়তা। সোনাই রয়েছে প্রচুর পরিমাণে খাদ্যআঁশ যা আপনার শরীরের কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করতে সাহায্য করে। খাবারের কাজ আপনার শরীর হজম করতে পারে না যার ফলে খাদ্যনালীর দিয়ে অতিক্রম করে। এর ফলে আপনার কোষ্ঠকাঠিন্য দূর হয়। 

ডায়াবেটিকস: 

ডায়বেটিক্স রোগীদের খাদ্য তালিকায় ডাক্তাররা প্রতিদিন 100 গ্রাম করে খোলা রাখে। প্রতি 100 গ্রাম ছোলায় রয়েছে 17 গ্রাম আমিষ বা প্রোটিন, 64 গ্রাম শর্করা বা কার্বোহাইড্রেট , ৫ গ্রাম ফ্যাট বা তেল। 

রক্তের চর্বি :

ছোলার ফ্যাটের বেশিরভাগই পলি আনস্যাচুয়েটেড। এই ফ্যাট শরীরের জন্য মোটেই ক্ষতিকর নয়, বরং রক্তের চর্বি কমায়। ছোলা শরীরের চর্বি কমিয়ে মাংস পেশি বৃদ্ধি করে। 

অস্থির ভাব দূর  :

গ্লাইসেমিক ইনডেক্স শরীরের অস্থির ভাব সৃষ্টি করে। 

 ছোলায় শর্করার গ্লাইসেমিক ইনডেক্সের পরিমাণ কম থাকায় শরীরে প্রবেশ করার পর অস্থির ভাব দূর হয়।

রোগ প্রতিরোধ করে : 

রাতে কাঁচা ছোলা ভিজিয়ে রেখে প্রতিদিন সকালে নিয়মিত খেলে শরীরের আমিষ এবং অ্যান্টিবায়োটিকের চাহিদা পূরণ হয়। যার ফলে শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি পায়। আমিষ শরীরের শক্তি বৃদ্ধি করে এবং অ্যান্টিবায়োটিক রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে। 

জালাপোড়া দুর কর: 

পৃথিবীতে অনেক মানুষ আছে যাদের হাত এবং পা জ্বালাপোড়া করে। মূলত শরীরে সালফার এর অভাবে এমন হয়ে থাকে। সালফারের চাহিদা তাত্ত্বিকভাবে শরীরে পূরণ করলে খুব দ্রুত এই সমস্যা সমাধান হয়ে যায়। ছোলাতে সালফারের উপাদান রয়েছে। নিয়মিত কাঁচা ছোলা খেলে সালফার এর অভাব পুরন হয় এবং শরীরে জ্বালাপোড়া দূর হয়। 

মেরুদণ্ডের ব্যথা দূর করে : 

ছোলা শরীরের মাংসপেশি এবং হাড়ের শক্তি বৃদ্ধিতে সহায়তা করে। ছোলাতে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন বি বিদ্যমান । যা মেরুদন্ডের হাড়ের শক্তি বৃদ্ধি করে এবং ব্যাথা কমায় । এছাড়াও স্নায়ু দুর্বলতা কমায়। 

যৌন দুর্বলতা: 

নিয়মিত ছোলা খেলে যৌন দুর্বলতা দূর হয়। শরীরে পুষ্টির অভাবে মূলত যৌন দুর্বলতা দেখা দেয়। ছোলায় প্রায় সকল প্রকার পুষ্টি উপাদান রয়েছে। যা আপনার যৌন দুর্বলতা দূর করবে। 

সিদ্ধ ছোলা খাওয়ার উপকারিতা

সিদ্ধ ছোলা খাওয়া অনেক উপকার আছে। কিন্তু কাঁচা ছোলার থেকে কম উপকারিতা। যারা কাঁচা ছোলা খেতে পারে না, তাদের জন্য সিদ্ধ ছোলা খাওয়া ভালো। সিদ্ধ ছোলায় কাঁচা ছোলার মত একই পুষ্টি উপাদান থাকে কিন্তু সিদ্ধ করার ফলে তা কমে যায়।

By Mahedi

লেখালেখি আমার সখ ও পেশা। আমি টেক্সটাইল এর উপর বিএসসি করেছি। কিন্তু পেশা হিসেবে ব্লগিংকে বেছে নিয়েছি। বর্তমানে এটি খুবই সন্মানজনক পেশা। আমি সাধারণত খেলাধুলা, ছবি, পড়াশোনা ইত্যাদি বিষয় নিয়ে লিখতে ভালবাসি ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *